1. admin@newsofzakigonj.com : admin :
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০২:১৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
শাহবাগ স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি নির্বাচিত হলেন মশিউল করিম চৌধুরী জকিগঞ্জে নাছির লস্কর এর নেতৃত্বে টিউবওয়েল মার্কার সমর্থনে গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণ সম্পন্নঃ আলহাজ্ব মোঃ খলিলুর রহমান সাহেবের জন্য সুস্থতা কামনাঃ শিতালং শাহ সম্পর্কে না জানা ইতিহাস হাজীগঞ্জ উন্নয়ন পরিষদ এর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সম্পন্ন জকিগঞ্জ উপজেলা পরিবেশক এসোশিয়েশনের বার্ষিক সম্মেলন সম্পন্নঃ বিখ্যাত মার্কিন ম্যাগাজিন ফোর্বসে ব্রিটিশ বাংলাদেশি জকিগঞ্জের তরুণ কাজী আবিদ নিরাপদ সড়কের দাবিতে কালিগঞ্জে মানববন্ধন সম্পন্ন জকিগঞ্জে রাস্তা নিয়ে সনাতন ধর্মালম্বী দুই পক্ষ মুখোমুখি : সংঘর্ষের আশঙ্কা সুবাস আইডিয়া ( আইসিটি এন্ড ইয়ুথ ডেভলপমেন্ট একাডেমি)’র উদ্ভোধন ও কবি সৈয়দ আছলাম হোসেন এর ১০ম কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন সম্পন্নঃ

পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদন পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেল

নিউজ অব জকিগঞ্জ ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৫ জুন, ২০২৩
  • ২৫৯ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টঃ

কয়লা না থাকায় পায়রা তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদন পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেল।

ডলার-সংকটে বিল বকেয়া থাকায় কয়লা সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে দেশের সবচেয়ে বড় এই বিদ্যুৎকেন্দ্রে। নতুন করে কয়লা এলে চলতি মাসের শেষ নাগাদ বিদ্যুৎকেন্দ্রটি আবার উৎপাদনে ফিরতে পারে।

তিন বছর আগে উৎপাদনে আসে পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্র। তারপর এবারই প্রথম বিদ্যুৎকেন্দ্রটির উৎপাদন পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেল। এতে বাড়তে পারে লোডশেডিং।

এর আগে ডলার-সংকটে কয়লা কিনতে না পেরে দুই দফায় বন্ধ হয়েছিল বাগেরহাটের রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র। তবে এই বিদ্যুৎকেন্দ্রটি এখন উৎপাদনে রয়েছে।

পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্রের মালিকানায় রয়েছে চীন ও বাংলাদেশের যৌথ উদ্যোগে গঠিত বাংলাদেশ-চায়না পাওয়ার কোম্পানি (বিসিপিসি)।

পটুয়াখালীর পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্রটির দুটি ইউনিট মিলে উৎপাদনের সক্ষমতা ১ হাজার ৩২০ মেগাওয়াট।
বিসিপিসির দুই কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথম আলোকে বলেন, বেশ কিছুদিন ধরে এই কেন্দ্র দিনে গড়ে ১ হাজার ২০০ মেগাওয়াটের বেশি বিদ্যুৎ সরবরাহ করে আসছিল। কয়লা না থাকায় গত ২৫ মে কেন্দ্রের একটি ইউনিটের উৎপাদন বন্ধ হয়। এরপর ৬৬০ মেগাওয়াট ক্ষমতার বাকি ইউনিট থেকে দিনে ৩০০ থেকে ৬২০ মেগাওয়াট করে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হচ্ছিল। এভাবে ২ জুন পর্যন্ত চালানোর কথা ছিল। তবে উৎপাদন কমিয়ে দুই দিন বাড়তি চালানো হয়। এখন উৎপাদন পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেল।

পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্র সূত্র বলছে, কয়লা আসতে অন্তত ২৫ দিন সময় লাগতে পারে। সে হিসাবে জুনের শেষ সপ্তাহে আবার বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হতে পারে। কয়লা আমদানির ঋণপত্র খোলা হয়েছে। ১২ জুন জাহাজে কয়লা তোলার কথা।

আজ দুপুর সাড়ে ১২টায় পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্রের উৎপাদন পুরোপুরি বন্ধ করা হয় বলে প্রথম আলোকে নিশ্চিত করেছেন বিসিপিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ এম খোরশেদুল আলম।

খোরশেদুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, বকেয়ার ১০ কোটি ডলার পরিশোধ করা হয়েছে। এতে পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্রের ওপর আস্থা রেখে কয়লা সরবরাহ শুরু করতে যাচ্ছে সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান। যত দ্রুত কয়লা আনা যায়, তার চেষ্টা চলছে।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) কর্মকর্তারা বলছেন, তিন বছর ধরে পায়রা থেকে বিদ্যুৎ আসছে। আগে এক দিনের জন্যও বিদ্যুৎ আসা বন্ধ হয়নি। দেশের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য এই বিদ্যুৎকেন্দ্র কয়লার অভাবে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় উৎপাদন অনেক কমে যাবে। এতে বিদ্যুতের চাহিদা ও উৎপাদনের মধ্যে বড় পার্থক্য তৈরি হবে। এ কারণে লোডশেডিং বাড়তে পারে। এমনিতেই গ্যাসের অভাবে এখন অনেক বিদ্যুৎকেন্দ্র চালানো যাচ্ছে না।

Facebook Comments Box

সংবাদটি শেয়ার করুন :
এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩ নিউজ অব জকিগঞ্জ
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park
error: Content is protected !!